বেলা ফুরাবার আগে - Bela Furabar Age আরিফ আজাদ। বই রিভিউ

বরফ যেমন গলতে গলতে একসময় নিঃশেষ হয়ে যায়, আমাদের জীবনটাও ঠিক তেমনই। সময়ের সাথে চলতে গিয়ে এই জীবন একদিন শুন্যের কোঠায় নেমে আসে। আচ্ছা, এই জীবনটা কি নিছক ভোগ আর আন্তির মাঝেই কেটে যাবে?


❝বেলা ফুরাবার আগে❞ বইটি কেনো আমাদের পড়া উচিত?

- জীবন ক্ষ-য়ি-ষ্ণু। নশ্বর এ পৃথিবী থেকে আমাদের সবাইকে মৃত্যুবরণ করতে হবে। মৃত্যুই যে চরম সত্য। তবুও সেই অনিবার্য সত্যের আগে আমাদেরকে ফিরে আসতে হবে রবের দিকে, খুঁজে নিতে হবে জীবনের আসল উদ্দেশ্য। হারাম কাজ, হারাম রিলেশন থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। রবের অনুগ্রহ পাওয়ার পথ খুঁজে নিতে হবে, রাসূলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে চিনতে হবে। দুনিয়াবি কাজকে প্রাধান্য না দিয়ে প্রাধান্য দিতে হবে সর্বশক্তিমান আল্লাহ তায়ালার ইবাদত ও তাঁর সন্তুষ্টিকে। এসব সম্পর্কে বিস্তারিত পাওয়া যাবে বইটিতে


আপনি বইটি পড়লে যা-যা সম্পর্কে স্পষ্ট সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন।

★ আপনি এই কারণে পড়বেন, ভালো-মন্দের দ্বিধাদ্বন্দে থেকে সঠিক পথ বাঁচাই করতে। দ্বীনে ফেরের পথে যে বাঁধাগুলোর সম্মুখীন হচ্ছেন সেগুলোর সমাধানের কৌশল জানতে। নিজের আসল গন্তব্যের নিশান জানতে। অন্ধকারের বৃত্ত থেকে নিজেকে বের করে আনতে।

চলুন, এবার নিজেকে আবিস্কার করি আলোর জগতে।

★ অন্ধকারে দিশেহারা আর দ্বিধাদ্বন্দে ভোগা একঝাঁক তারুণ্যের জন্য এই বই। যে দ্বিধাদ্বন্দ্বের গহ্বরে তারা জীবনের বসন্তগুলোকে ভুলপথে পার করছে, সেই ভুল থেকে তাদের ‘বেলা ফুরাবার আগে’ টেনে তুলতেই বইটার অবতারণা।

★ বেলা ফুরাবার আগে বইটি মূলত নিজেকে আবিষ্কারের একটি আয়না। বইটিতে লেখক কোরআন ও হাদিসের আলোকে ১৬টি ট্রপিকের মাধ্যমে দ্বীন ভুলে বিলাসিতায় গা ভাসিয়ে দেওয়া তরুণদেরকে যেমন সতর্ক করেছেন অপরদিকে যারা সঠিক গন্তব্যের উদ্দেশ্য দ্বীনের পথ আঁকড়ে আছেন তাদের অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। আবার, দ্বীন পালন করতে গিয়ে একজন যুবক, অথবা একজন মুসলমান যে বাধার সম্মুখীন হয়, সেই বাঁধাগুলো অতিক্রমের গল্পই বলা যায় এই বইটাকে।

বেলা ফুরবার আগে বইয়ের ছবি


বইটা যেকোনো পাঠকের কাছে পড়ে ভালো লাগার আর একটি প্রধান কারন হলো, লেখক তার লেখাগুলোতেঃ

- সাবলীলভাবে উপস্থাপন

- প্রমিত বানানরীতি অনুসরন

- সাধুভাষা অনুসরন এবং

- বাংলা শব্দের যথাযথ অনুসরণ করার চেষ্টা করেছেন।


বইঃ বেলা ফুরাবার আগে। 

লেখকঃ আরিফ আজাদ। 

প্রথম প্রকাশঃ একুশে গ্রন্থমেলা ২০২০

প্রকাশনীঃ সমকালীন প্রকাশন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

2 মন্তব্যসমূহ