পাওলো কোয়েলহো’র দ্য আলকেমিস্ট রিভিউ

 পৃথিবীতে যে বইটি প্রত্যেকের পড়া উচিৎ, তার মধ্যে সবচেয়ে উপরের সাড়ির একটি দি আলকেমিস্ট। পাওলো কোয়েলহোর লেখা সৃষ্ট এবং প্রথম সফল একটি উপন্যাস। 

স্পেনের আন্দালুসিয়ায় এলাকায় বসবাসকারী এক যুবকের নাম সান্তিয়াগো। বাবা মায়ের ইচ্ছা সে বড় হয়ে যাজক হবে কিন্তু সান্তিয়াগো তা হতে চায় না সে বিশ্ব ভ্রমণ করতে চায়। মনোবাঞ্ছা পূরণ করতে একদিন সে ভেড়ার পাল নিয়ে বেড়িয়ে পড়ে অজানায়। একরাতে সে গুপ্তধন নিয়ে অদ্ভুত একটা স্বপ্নে দেখে, জিপসি বুড়ির কাছে স্বপ্নের তদবির জানতে চাইলে বুড়ি তাকে মিশরের পিরামিডের কথা বলে। বুড়ি তাকে গুপ্তধনের সন্ধান পাইয়ে দেবে কিন্তু তার বিনিময়ে সে গুপ্তধনের ভাগ চেয়ে বসে। 

বুড়ির কথা শুনে সান্তিয়াগোর মনেও আশা জাগে, কিন্তু কোথায় পাবে সেই গুপ্তধন? সত্যিই কি তার ভাগ্য তাকে গুপ্তধনের সন্ধান দিবে নাকি সবই মরিচীকা? 

অবশেষে সে ঠিক করে গুপ্তধন খুঁজতে বের হয়, এরপরই তার দেখা হয় সলেমের বৃদ্ধ রাজার সাথে, যে তাকে দুইটি মূল্যবান পাথর উপহার দেয়। বৃদ্ধের দেওয়া দিক নির্দেশনা অনুযায়ী সান্তিয়াগো বেরিয়ে পড়ে গুপ্তধনের খোঁজে... 

আলকেমিস্ট বইয়ের ছবি


তখন থেকেই শুরু হয় এক অনিশ্চিত যাত্রা, কখনো স্পেনের অদূরে কোনো শহরে, যেখানে প্রতিদিন নতুন নতুন মানুষের সাথে পরিচয়, তাদের নতুন নতুন সব গল্প । কখনো বা মরুভূমিতে যেখানে যেখানে পদে পদে ছিলো মৃত্যুফাঁদ, আবার কখনো মরুদ্যান যেখানে তার জন্য জমা ছিলো ভালোবাসা আর হাতে ছিলো ক্ষমতা। তবে এসব কিছুই সান্তিয়াগোকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। একসময় সে মিশরে পৌছে, কিন্তু সত্যি কি সায়ান্তিয়াগো গুপ্তধনের সন্ধান পেয়েছিলো, 

নাকি খালি হাতেই ফিরতে হয়েছিল তাকে? 


📖 ফ্ল্যাপ থেকে :-

         “মানুষ যখন সর্বান্তকরণে চায় কিছু একটা পেতে, মহাবিশ্বের প্রতিটি কণা যােগসাজশে লেগে পড়ে সেই চাহিদা মেটাতে”

       রাখাল-বালক সান্তিয়াগাে তার স্বপ্নকে সত্যি করতে এবং সেই বহুল প্রতীক্ষার স্বপ্নের গুপ্তধন সন্ধান করতে বাড়ি ছাড়া হয় এবং সে বুড়ি ও সালেমের রাজার কথা শুনে।।

      জানে না...এই যাত্রার শেষে অপেক্ষা করছে ওরই জীবনের লক্ষ্য!

      কিন্তু জীবনের অপর নাম যে কুহেলিকা! এত সহজে পেতে দেবে না ওকে লক্ষ্য। তাই ছেলেটাকে প্রস্তুত করার জন্য একের-পর-এক বাধা ফেলল সামনে, সেই সাথে উপহার দিল সেগুলাে অতিক্রম করার উপায়ও।

      এলাে প্রেম, ভালােবাসাকে শক্তি বানিয়ে রাখাল- বালক এগিয়ে গেল দৃঢ়তার সাথে।

      শেষ পর্যন্ত পেল কি সেই গুপ্তধন? 


পাঠ-প্রতিক্রিয়াঃ 

আলকেমিস্ট বইটি যে পাঠক পড়বে তার জীবনে পড়া সবথেকে সেরা বইগুলোর মধ্যে একটি হবে বইটি । আর যে বইগুলো প্রত্যেকটা পাঠকের উচিৎ পড়া – তার মধ্যে একটি অবশ্যই “দি আলকেমিস্ট”। আমরা কোনো কিছু অর্জনে চেষ্টা চালিয়ে যাই, কিন্তু কোনো এক পর্যায়ে নিজেকে ব্যার্থ ভেবে চেষ্টা করা বন্ধ করে দেই। অথচ আমরা জানতামই না, যেখান থেকে চেষ্টা করা বন্ধ করে দিয়েছি, তার একটু সামনে গেলেই সেটি অর্জন হয়তো হয়ে যেত।

অথবা অনেক সময় আমাদের লক্ষের দিকে যাওয়ার পথেই লক্ষ হতে সরে যাই, এই ভেবে যে আমার তো কোনো অভাব নেই। কিন্তু সেই অভাব তো আর চিরস্থায়ী না। এক সময় সেই লক্ষের কথা মনে হবে। নিজেকে অনুতপ্ত হতে হবে। আহা! কেনো তখন সেটি হতে সরে গেলাম। 

বইটি অনেক কিছুই শিখাবে পাঠককে। বইটি আপনাকে লক্ষ অর্জনের প্রেরণা দিবে।


বই: দ্য আলকেমিস্ট 

লেখক: পাওলো কোয়েলহো

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

2 মন্তব্যসমূহ